My first app FBirthday manager is on the app market. Developed with 2 friends Shuvro & Imon.

Bring Friends’ Birth dates from facebook, see them on ‘today’, this week’, ‘this month’ list. Wish friends on their wall through app……

https://play.google.com/store/apps/details?id=com.codeaddictsofcseku.facebookbirthdaymanager

FBirthday Manager

FBirthday Manager-My first android app on market

Advertisements
Atanu's photos

@atanu_cse

 

 

This is a comparison between Instagram and Streamzoo. I use them both with android phone.

* Definitely Instagram has a huge amount of users, but fake accounts are increasing as well. That’s irritating. On the other hand Streamzoo has a less amount of users, but comparatively less fake accounts.
* Both have some amazing effects.
* +1 for Streamzoo for the border.
* It’s difficult for beginners on Instagram to get attention. But ‘shoutout’ made it easy on Streamzoo
* Streamzoo has private massage option, Instagram hasn’t yet.
* Streamzoo has more organized website than Instagram. The website that has been made by the Instagram and Facebook developers together is good. But don’t has upload option. Yet the ‘like’ providing system is much efficient than Streamzoo.
* Tilt-shift effect is better on Streamzoo
* Streamzoo has point system. Though I didn’t find any effective use of it, but one just can measure his/others’ activity and improvement with this.
* ‘Badge’ is a good way to appreciate one’s photography and activity on Streamzoo. ‘Badge’ & ‘Stream’ also reflects one’s likes & choices. Instagram has ‘tag/stream’ but not the ‘badge’
* Recently Instagram included mapping facility. Photos will be shown through map.

Streamzoo is the winner for me. But hopefully Instagram will catch Streamzoo as it has to fulfill huge number of user’s expectation.

My Instagram & Streamzoo account : @atanu_cse

My group Phoenix (Me, Tauhid, Tamanna) came 5th in Programming Contest in KUET CSE festival 2012 among 28 groups on 29 June,2012 🙂

using System.Net.Mail;

 

MailMessage mail = new MailMessage();
mail.To.Add(“omuk@tomuk.com”);

mail.From = new MailAddress(“atanu.cse.ku@gmail.com”);
mail.Subject = “here is your subject”;

string Body =”here is the body”;
mail.Body = Body;

mail.IsBodyHtml = true;
SmtpClient smtp = new SmtpClient();
smtp.Host = “smtp.gmail.com”; //Or Your SMTP Server Address
smtp.Credentials = new System.Net.NetworkCredential
(“***********”, “*********”);//address & password
smtp.EnableSsl = true;
smtp.Send(mail);

 

———————————————————————————————————————

add this to web.config

<system.webServer>
<modules runAllManagedModulesForAllRequests=”true”/>
</system.webServer>

Schindler’s list (1993) IMDb -৮.৯ নিয়ে কিছু বলার প্রয়োজন নেই | movie lover সবাই এই ফিল্ম সম্পর্কে জানে | বাস্তব কাহিনীর উপর তৈরী এই Schindler’s list | World war II এর সময়কার ঘটনার উপর নির্মিত , যখন হিটলার হত্যার উত্সব করছিল সারা দুনিয়াতে , তখন Oskar schindler ১১০০ জন jews কে বাচাতে সমর্থ হয় , বিনিময়ে তাকে মোটা অঙ্কের amount খরচ করতে হয়েছে , এমনকি অনেক loss এর মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে ,তবু সে jews দের রক্ষা করে | Schindler’s list এর সাথে বাস্তবের ইতিহাসের কিছু পার্থক্য রয়েছে , যেমন: actual list তৈরির সময় Oskar schindler ছিলেন না , তিনি কিছু নাম reccomend করেছিলেন শুধু , বরং তিনি jail এ ছিলেন এবং সেই manager ও তার সাথে তখন আর ছিলেন না | যাহোক movie interesting করতে কিছু বদল করতেই হয় | তবে schindler এর genocide দেখা(যদিও movie র মতো হিল এ দাড়িয়ে না) সত্যি ছিল , যার উল্লেখ oskarschindler সাইটে আছে |

Comparison between Schindler’s list and Reality

Letter from Schindler Jews

Oskar schindler site

schindler

schindler’s list

এখন আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ফিল্ম এ আশা যাক | Spillberg নেই আমাদের দেশ এ , তাই schindler ‘s list হয়তো হবেনা , তবে বাস্তব কাহিনী আমাদের কম ই আসছে | oskar schindler (মানুষ রক্ষার প্রতিক ,তার দেশ দিয়ে মাপা হচ্ছেনা ) এর মতো হয়তো বাস্তবে অনেকে ছিল বাংলাদেশে, তাদের নিয়ে কেউ feature করেনা | তাছাড়া সত্যিকার চিত্রটাই বা ফুটে উঠেছে কতটুকু! অধিকাংশ movie হয়েছে ‘বাস্তবের সাথে কল্পনা মিলিয়ে ‘ | যেমন: জায়গা,মানুষের নাম গুলা তো বাস্তবের সাথে মিলিয়ে রাখা যেত ,একদম সত্যিকার ঘটনা উপস্থাপন করা যেত | তাতে অনেক বাস্তবের চরিত্র/hero সবার সামনে উঠে আসতো যাদের নাম আজও অজানা | পুরো মুক্তিযুদ্ধ কখনই সামনে আসেনি ,এসেছে কিছু টুকরো গল্প | বাস্তব কাহিনী জানা বা উপস্থাপন কি এতটাই কষ্টের ! movie গুলি বাংলাদেশ এর ইতিহাস হয়ে থাকতে পারত |

Decimal values to English words
Source


public static string NumberToCurrencyText(decimal number, MidpointRounding midpointRounding)
{
// Round the value just in case the decimal value is longer than two digits
number = decimal.Round(number, 2, midpointRounding);

string wordNumber = string.Empty;

// Divide the number into the whole and fractional part strings
string[] arrNumber = number.ToString().Split(‘.’);

// Get the whole number text
long wholePart = long.Parse(arrNumber[0]);
string strWholePart = NumberToText(wholePart);

// For amounts of zero dollars show ‘No Dollars…’ instead of ‘Zero Dollars…’
wordNumber = (wholePart == 0 ? “No” : strWholePart) + (wholePart == 1 ? ” Dollar and ” : ” Dollars and “);

// If the array has more than one element then there is a fractional part otherwise there isn’t
// just add ‘No Cents’ to the end
if (arrNumber.Length > 1)
{
// If the length of the fractional element is only 1, add a 0 so that the text returned isn’t,
// ‘One’, ‘Two’, etc but ‘Ten’, ‘Twenty’, etc.
long fractionPart = long.Parse((arrNumber[1].Length == 1 ? arrNumber[1] + “0” : arrNumber[1]));
string strFarctionPart = NumberToText(fractionPart);

wordNumber += (fractionPart == 0 ? ” No” : strFarctionPart) + (fractionPart == 1 ? ” Cent” : ” Cents”);
}
else
wordNumber += “No Cents”;

return wordNumber;
}

public static string NumberToText(long number)
{
StringBuilder wordNumber = new StringBuilder();

string[] powers = new string[] { “Thousand “, “Million “, “Billion ” };
string[] tens = new string[] { “Twenty”, “Thirty”, “Forty”, “Fifty”, “Sixty”, “Seventy”, “Eighty”, “Ninety” };
string[] ones = new string[] { “One”, “Two”, “Three”, “Four”, “Five”, “Six”, “Seven”, “Eight”, “Nine”, “Ten”,
“Eleven”, “Twelve”, “Thirteen”, “Fourteen”, “Fifteen”, “Sixteen”, “Seventeen”, “Eighteen”, “Nineteen” };

if (number == 0) { return “Zero”; }
if (number 0)
{
groupedNumber[groupIndex++] = number % 1000;
number /= 1000;
}

for (int i = 3; i >= 0; i–)
{
long group = groupedNumber[i];

if (group >= 100)
{
wordNumber.Append(ones[group / 100 – 1] + ” Hundred “);
group %= 100;

if (group == 0 && i > 0)
wordNumber.Append(powers[i – 1]);
}

if (group >= 20)
{
if ((group % 10) != 0)
wordNumber.Append(tens[group / 10 – 2] + ” ” + ones[group % 10 – 1] + ” “);
else
wordNumber.Append(tens[group / 10 – 2] + ” “);
}
else if (group > 0)
wordNumber.Append(ones[group – 1] + ” “);

if (group != 0 && i > 0)
wordNumber.Append(powers[i – 1]);
}

return wordNumber.ToString().Trim();
}
}


Calendar c1= Calendar.getInstance();
c1.set(year, month, date);
Calendar c2 = Calendar.getInstance();
c2.set(year2, month2, date2);

int week1=c1.get(c1.WEEK_OF_YEAR);
int week2=c2.get(c2.WEEK_OF_YEAR);

if(week1==week2)
{
//Do something
}


import java.util.Calendar;

Calendar c=Calendar.getInstance();
int year=c.get(c.YEAR);
int month=c.get(c.MONTH); //0-11
int date=c.get(c.DATE);
Log.d(tagg, String.valueOf(year));
Log.d(tagg, String.valueOf(month));
Log.d(tagg, String.valueOf(date));

My ACM Solves till 24-02-12

Posted: February 24, 2012 in Educational
Tags:

This is the acm list that I’ve solved till now.These are from UVA online judge.

100,102,113,160,
272,294,299,
350,371,
401,408,424,444,445,458,488,492,494,499
541,543,575,579,591,
686,694,
706,
884,
900,
10008,10013,10014,10018,10035,10038,10041,10050,10055,10062,10070,10071,10079,10082,
10110,10170,10189,10193,10195,
10222,10235,10252,10260,10286,
10300,10302,10327,10340,10370,
10424,10450,10469,10474,10499,
10591,
10656,10696,
10783,
10812,10878
10921,10922,10929,
11000,
11172,11185,11192,
11220,11233,
11340,
11470,
11530,11541,
11608,11636,11650,11677,
11713,11716,11727

বল বীর-

বল উন্নত মম শির!

শির নেহারী’ আমারি নতশির ওই শিখর হিমাদ্রীর!

বল বীর-

বল মহাবিশ্বের মহাকাশ ফাড়ি’

চন্দ্র সূর্য্য গ্রহ তারা ছাড়ি’

ভূলোক দ্যূলোক গোলোক ভেদিয়া

খোদার আসন ‘আরশ’ ছেদিয়া,

উঠিয়াছি চির-বিস্ময় আমি বিশ্ববিধাতৃর!

মম ললাটে রুদ্র ভগবান জ্বলে রাজ-রাজটীকা দীপ্ত জয়শ্রীর!

বল বীর-

আমি চির-উন্নত শির!

 

আমি চিরদুর্দম, দূর্বিনীত, নৃশংস,

মহাপ্রলয়ের আমি নটরাজ, আমি সাইক্লোন, আমি ধ্বংস!

আমি মহাভয়, আমি অভিশাপ পৃথ্বীর,

আমি দূর্বার,

আমি ভেঙে করি সব চুরমার!

আমি অনিয়ম উচ্ছৃঙ্খল,

আমি দ’লে যাই যত বন্ধন, যত নিয়ম কানুন শৃঙ্খল!

আমি মানি না কো কোন আইন,

আমি ভরা-তরী করি ভরা-ডুবি, আমি টর্পেডো, আমি ভীম ভাসমান মাইন!

আমি ধূর্জটী, আমি এলোকেশে ঝড় অকাল-বৈশাখীর

আমি বিদ্রোহী, আমি বিদ্রোহী-সুত বিশ্ব-বিধাতৃর!

বল বীর-

চির-উন্নত মম শির!

 

আমি ঝঞ্ঝা, আমি ঘূর্ণি,

আমি পথ-সম্মুখে যাহা পাই যাই চূর্ণি’।

আমি নৃত্য-পাগল ছন্দ,

আমি আপনার তালে নেচে যাই, আমি মুক্ত জীবনানন্দ।

আমি হাম্বীর, আমি ছায়ানট, আমি হিন্দোল,

আমি চল-চঞ্চল, ঠমকি’ ছমকি’

পথে যেতে যেতে চকিতে চমকি’

ফিং দিয়া দেই তিন দোল্;

আমি চপোলা-চপোল হিন্দোল।

আমি তাই করি ভাই যখন চাহে এ মন যা’,

করি শত্রুর সাথে গলাগলি, ধরি মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা,

আমি উন্মাদ, আমি ঝঞ্ঝা!

আমি মহামারী, আমি ভীতি এ ধরীত্রির;

আমি শাসন-ত্রাসন, সংহার আমি উষ্ণ চির অধীর।

বল বীর-

আমি চির-উন্নত শির!

 

আমি চির-দূরন্ত দুর্মদ

আমি দূর্দম মম প্রাণের পেয়ালা হর্দম্ হ্যায় হর্দম্ ভরপুর্ মদ।

 

আমি হোম-শিখা, আমি সাগ্নিক জমদগ্নি,

আমি যজ্ঞ, আমি পুরোহিত, আমি অগ্নি।

আমি সৃষ্টি, আমি ধ্বংস, আমি লোকালয়, আমি শ্মশান,

আমি অবসান, নিশাবসান।

 

আমি ঈন্দ্রাণী-সুত হাতে চাঁদ ভালে সূর্য

মম এক হাতে বাঁকা বাঁশের বাঁশরী আর হাতে রণ তূর্য;

 

আমি কৃষ্ণ-কন্ঠ, মন্থন-বিষ পিয়া ব্যথা বারিধির।

আমি ব্যোমকেশ, ধরি বন্ধন-হারা ধারা গঙ্গোত্রীর।

বল বীর-

চির-উন্নত মম শির!

 

আমি সন্ন্যাসী, সুর সৈনিক,

আমি যুবরাজ, মম রাজবেশ ম্লান গৈরিক।

আমি বেদুইন, আমি চেঙ্গিস,

আমি আপনারে ছাড়া করি না কাহারে কূর্ণিশ।

আমি বজ্র, আমি ঈষাণ-বিষানে ওঙ্কার,

আমি ইস্রাফিলের শৃঙ্গার মহা-হুঙ্কার,

আমি পিনাক-পাণির ডমরু ত্রিশুল, ধর্মরাজের দন্ড,

আমি চক্র-মহাশঙ্খ, আমি প্রণব-নাদ প্রচন্ড!

আমি ক্ষ্যাপা দুর্বাসা, বিশ্বামিত্র-শিষ্য,

আমি দাবানল-দাহ, দহন করিব বিশ্ব।

আমি প্রাণ-খোলা হাসি উল্লাস, -আমি সৃষ্টি-বৈরী মহাত্রাস

আমি মহাপ্রলয়ের দ্বাদশ রবির রাহু-গ্রাস!

আমি কভু প্রশান্ত, -কভু অশান্ত দারুণ স্বেচ্ছাচারী,

আমি অরুণ খুনের তরুণ, আমি বিধির দর্পহারী!

আমি প্রভঞ্জনের উচ্ছাস, আমি বারিধির মহাকল্লোল,

আমি উজ্জ্বল, আমি প্রোজ্জ্বল,

আমি উচ্ছল জল-ছল-ছল, চল ঊর্মির হিন্দোল-দোল!-

 

আমি বন্ধনহারা কুমারীর বেনী, তন্বী নয়নে বহ্নি,

আমি ষোড়শীর হৃদি-সরসিজ প্রেম উদ্দাম, আমি ধন্যি!

 

আমি উন্মন, মন-উদাসীর,

আমি বিধবার বুকে ক্রন্দন-শ্বাস, হা-হুতাশ আমি হুতাশীর।

আমি বঞ্চিত ব্যথা পথবাসী চির গৃহহারা যত পথিকের,

আমি অবমানিতের মরম-বেদনা, বিষ-জ্বালা, প্রিয় লাঞ্ছিত বুকে গতি ফের

আমি অভিমানী চির ক্ষূব্ধ হিয়ার কাতরতা, ব্যাথা সূনিবিড়,

চিত চুম্বন-চোর-কম্পন আমি থর থর থর প্রথম পরশ কুমারীর!

আমি গোপন-প্রিয়ার চকিত চাহনি, ছল ক’রে দেখা অনুখন,

আমি চপল মেয়ের ভালোবাসা, তাঁর কাঁকণ-চুড়ির কন্-কন্।

আমি চির শিশু, চির কিশোর,

আমি যৌবন-ভীতু পল্লীবালার আঁচর কাঁচুলি নিচোর!

আমি উত্তর-বায়ু মলয়-অনিল উদাস পূরবী হাওয়া,

আমি পথিক-কবির গভীর রাগিণী, বেণু-বীণে গান গাওয়া।

আমি আকুল নিদাঘ-তিয়াসা, আমি রৌদ্র-রুদ্র রবি

আমি মরু-নির্ঝর ঝর-ঝর, আমি শ্যামলিমা ছায়াছবি!

আমি তুরীয়ানন্দে ছুটে চলি, এ কি উন্মাদ আমি উন্মাদ!

আমি সহসা আমারে চিনেছি, আমার খুলিয়া গিয়াছে সব বাঁধ!

 

আমি উত্থান, আমি পতন, আমি অচেতন চিতে চেতন,

আমি বিশ্বতোরণে বৈজয়ন্তী, মানব-বিজয়-কেতন।

ছুটি ঝড়ের মতন করতালী দিয়া

স্বর্গ মর্ত্য-করতলে,

তাজী বোর্রাক্ আর উচ্চৈঃশ্রবা বাহন আমার

হিম্মত-হ্রেষা হেঁকে চলে!

 

আমি বসুধা-বক্ষে আগ্নেয়াদ্রী, বাড়ব বহ্নি, কালানল,

আমি পাতালে মাতাল, অগ্নি-পাথার-কলরোল-কল-কোলাহল!

আমি তড়িতে চড়িয়া, উড়ে চলি জোড় তুড়ি দিয়া দিয়া লম্ফ,

আমি ত্রাস সঞ্চারি’ ভুবনে সহসা, সঞ্চারি ভূমিকম্প।

 

ধরি বাসুকির ফণা জাপটি’-

ধরি স্বর্গীয় দূত জিব্রাইলের আগুনের পাখা সাপটি’।

 

আমি দেবশিশু, আমি চঞ্চল,

আমি ধৃষ্ট, আমি দাঁত দিয়া ছিঁড়ি বিশ্ব-মায়ের অঞ্চল!

আমি অর্ফিয়াসের বাঁশরী,

মহা-সিন্ধু উতলা ঘুম্ঘুম্

ঘুম্ চুমু দিয়ে করি নিখিল বিশ্বে নিঝ্ঝুম

মম বাঁশরীর তানে পাশরি’।

আমি শ্যামের হাতের বাঁশরী।

 

আমি রুষে উঠি’ ছুটি মহাকাশ ছাপিয়া,

ভয়ে সপ্ত নরক হাবিয়া দোযখ নিভে নিভে যায় কাঁপিয়া!

আমি বিদ্রোহ-বাহী নিখিল অখিল ব্যাপিয়া!

 

আমি শ্রাবণ-প্লাবন-বন্যা,

কভু ধরনীরে করি বরণীয়া, কভু বিপুল ধ্বংস ধন্যা-

আমি ছিনিয়া আনিব বিষ্ণু-বক্ষ হইতে যুগল কন্যা!

আমি অন্যায়, আমি উল্কা, আমি শনি,

আমি ধূমকেতু জ্বালা, বিষধর কাল-ফণী!

আমি ছিন্নমস্তা চন্ডী, আমি রণদা সর্বনাশী,

আমি জাহান্নামের আগুনে বসিয়া হাসি পুষ্পের হাসি!

 

আমি মৃন্ময়, আমি চিন্ময়,

আমি অজর অমর অক্ষয়, আমি অব্যয়!

আমি মানব দানব দেবতার ভয়,

বিশ্বের আমি চির-দুর্জয়,

জগদীশ্বর-ঈশ্বর আমি পুরুষোত্তম সত্য,

আমি তাথিয়া তাথিয়া মাথিয়া ফিরি স্বর্গ-পাতাল মর্ত্য!

আমি উন্মাদ, আমি উন্মাদ!!

আমি চিনেছি আমারে, আজিকে আমার খুলিয়া গিয়াছে সব বাঁধ!!

 

আমি পরশুরামের কঠোর কুঠার

নিঃক্ষত্রিয় করিব বিশ্ব, আনিব শান্তি শান্ত উদার!

আমি হল বলরাম-স্কন্ধে,

আমি উপাড়ি’ ফেলিব অধিন বিশ্ব অবহেলে, নব সৃষ্টির মহানন্দে

 

মহা-বিদ্রোহী রণ-ক্লান্ত

আমি সেই দিন হব শান্ত,

যবে উৎপীড়িতের ক্রন্দন-রোল আকাশে বাতাসে ধ্বনিবে না-

অত্যাচারীর খড়্গ কৃপাণ ভীম রণভূমে রণিবে না-

বিদ্রোহী রণ ক্লান্ত

আমি সেই দিন হব শান্ত।

 

আমি বিদ্রোহী ভৃগু, ভগবান বুকে এঁকে দিই পদ-চিহ্ন,

আমি স্রষ্টা-সূদন, শোক-তাপ-হানা খেয়ালী বিধির বক্ষ করিব ভিন্ন!

আমি বিদ্রোহী ভৃগু, ভগবান বুকে এঁকে দেবো পদ-চিহ্ন!

আমি খেয়ালী বিধির বক্ষ করিব ভিন্ন!

 

আমি চির-বিদ্রোহী বীর-

বিশ্ব ছাড়ায়ে উঠিয়াছি একা চির-উন্নত শির!